তুরস্ক সফরে বাংলাদেশী উলামা মাশায়েখ প্রতিনিধি দল

ইস্তাম্বুলের বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি বিষয়ক ফাউন্ডেশনের আমন্ত্রণে আট দিন ব্যাপী সেমিনার কর্মশালা ও ঐতিহাসিক স্থান ভ্রমণ উপলক্ষ্যে বাংলাদেশী উলামা মাশায়েখদের একটি প্রতিনিধি দল ১৯ এপ্রিল ভোরে টার্কিশ এয়ার লাইন্স যোগে তুরস্কের উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করেন। বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের মহাসচিব মাওলানা শাব্বীর আহমদ মোমতাজীর নেতৃত্বে ৯ সদস্যের একটি আলেম শিক্ষাবিদ ও ইসলাম প্রচারক দল এবং উলামা মাশায়েখ ও স্কলার্স ইউনিটি বাংলাদেশের চেয়ারম্যান ও দৈনিক ইনকিলাবের সহকারী সম্পাদক মাওলানা উবায়দুর রহমান খান নদভীর নেতৃত্বে ৯ জন মাশায়েখ, বুদ্ধিজীবী ও চিন্তাবিদ গ্রুপ এ প্রতিনিধি দলে রয়েছেন। তারা তুরস্ক বাংলাদেশের সার্বিক সুসম্পর্ক, বিশেষ করে দীনি ক্ষেত্রে পারস্পরিক যোগাযোগ উন্নয়নে নতুন গতি সৃষ্টির বিষয়ে সেদেশের দীনি ও আধ্যাত্মিক অঙ্গনে বিভিন্ন কর্মসূচীতে যোগদান এবং সংলাপ করবেন।

          পদ্মা বিধৈৗত রাজবাড়ী জেলা শহরের সন্নিকটে ওলী-আওলিয়াদের স্মৃতি বুকে জড়িয়ে বিশাল দেহ-বল্লারী নিয়ে সমহিমায় উদ্ভাসিত ইলমে শরীয়ত ও মারেফতের দ্বীনি মারকাজ ভান্ডারিয়া সিদ্দিকীয়া ফাজিল (বি এ) মাদরাসা। সুন্নতে নববীর মুজাচছাম নমুনায় একটি আদর্শ জাতি গঠনের লক্ষ্যে ফুরফুরা শরীফের কাইয়োমুজ্জামান আলহাজ্জ হযরত মাওলানা আবু নছর মোহাম্মাদ আবদুল হাই ছিদ্দিকী আল কুরাইশি (রহ:) এর হাতেগড়া স্বর্ণমানব আমীরে সালেকীন, পীরে কামেল শাহসূফী আলহাজ্জ হযরত মাওঃ মোজ্জামেল হক সাহেব এক ঝাঁক দক্ষ, মেধাবী, চৌকষ সাহসী সৈনিক নিয়ে  শত বাঁধার প্রাচীর পেরিয়ে ১৯৫৫ সালে প্রতিষ্ঠা করেন এ মাদরাসা।

         ভান্ডারিয়া দরবার শরীফের অন্যতম প্রতিষ্ঠান ভান্ডারিয়া  সিদ্দিকীয়া কামিল মাদরাসা গতানুগতিক কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নাম নয়। এটি ইলমে শরীয়ত ও ইলমে মারেফতসহ নানা ধরণের পরিকল্পনার যথাযথ বাস্তবায়ন করে জাতিকে চতুর্মূখী যোগ্যতাসম্পন্ন বিচক্ষণ আলেমে দ্বীন উপহার দেওয়ার প্রতিষ্ঠান।

               সুবিন্যস্ত সিলেবাসের ভিত্তিতে এখানে পর্যায়ক্রমে কুরআন, হাদীস, ফিকাহ, তাফসীর, তাসাউফ, উসূল, আকায়েদ, আরবী সাহিত্য, বাংলা সাহিত্য, ব্যাকরণ, নাহু, সরফ, বালাগাত সহ বাংলা, ইংরেজী, গণিত, ইতিহাস, পৌরনীতি, সাধারণ বিজ্ঞান রাষ্ট্র বিজ্ঞান, সমাজ বিজ্ঞান, ভূগোল, কম্পিউটার,  তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ইত্যাদি শিক্ষার পাশাপাশি জনসমাজে ইসলামী শিক্ষার সুফল পৌঁছে দেয়ার মহান লক্ষ্যে বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ করে থাকে। ফলে প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে বিভিন্ন ক্ষেত্রে ঈর্ষনীয় সাফল্য অর্জন করে অতি অল্প সময়ে এর সুনাম-সুখ্যাতি বিশ্বের আনাচে-কানাচে ছড়িয়ে পড়েছে। সার্বিক দিক বিবেচনায় এ প্রতিষ্ঠানটি সর্বমহলের নজর কেড়েছে। অপর দিকে বাংলাদেশ মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে অনুষ্ঠিত কেন্দ্রীয় পরীক্ষাসমূহে সেরা বিশে অবস্থান করে ধারাবাহিকভাবে সাফল্য অর্জন করে চলছে। এ প্রতিষ্ঠানে আপনাকে জানাই

                                 খোশ আমদেদ